খুবিতে”গণমাধ্যমে কর্মী ছাঁটাই অবিলম্বে বন্ধ কর”দাবীতে মানবব্ন্ধন…

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ছবিঃ সংগৃহীত

চলমান করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে সম্মুখ সারিতে কাজ করে যাওয়া গণমাধ্যমকর্মী ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে রোববার(৩০ আগস্ট) বিকেল ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে “গণমাধ্যমে কর্মী ছাঁটাই অবিলম্বে বন্ধ কর” ব্যানারে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের(খুবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা ডিসিপ্লিনের শিক্ষার্থীরা।

এসময় গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক মামুন অর রশীদ বলেন, মালিক-সম্পাদকদের বলবো, আপনার ব্যয় সংকোচন নীতি মেনে চলুন। প্রয়োজনে একদিন পত্রিকা ছাপা বন্ধ রাখুন। কিন্তু গণমাধ্যমকর্মী ছাঁটাই বন্ধ করুন। এমন অবস্থা চলতে থাকলে আমাদের মেধাবী শিক্ষার্থীরা এই পেশায় কখনই আসতে চাইবে না।

প্রভাষক মাজেদুল ইসলাম বলেন, খুব কম গণমাধ্যমই ওয়েজ বোর্ড ফলো করে। ব্যতিক্রম বাদে বেশির ভাগ গণমাধ্যমই তাদের কর্মীদের খুব কম বেতন দিয়ে থাকে। এরমধ্যে যদি তাদের চাকরিচ্যুত করা হয় তাহলে তারা তাদের পরিবার নিয়ে কোথায় যাবে?

প্রভাষক শরীফুল ইসলাম বলেন, মাথা ব্যাথার সমস্যা মাথা কেটে ফেলা হতে পারে না। গণমাধ্যমকর্মী ছাঁটাই না করে প্রকাশক ও মালিকপক্ষের উদ্দেশ্যে বলবো আপনারা বেতন কমিয়ে দিন, পৃষ্ঠা সংখ্যা কমিয়ে দিন, ব্যয় সংকোচ করুন। প্রয়োজন হলে আমাদের সাথে আলোচনায় বসুন। কিন্তু এই অমানবিকতা বন্ধ করুন।

খুবি জার্নালিজম ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মতিউর রহমান বলেন, গণমাধ্যমকর্মীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে। কিন্তু তাদের কাজের তেমন কোন মূল্যায়ন পায় না। এই পেশায় গণমাধ্যমকর্মীরা ভাই বলে সম্বোধন করলেও আজ বিপদের সময় ভাই তার ভাইকে দূরে ঠেলে দিচ্ছে।

খুবি সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মীর হাসিব বলেন, গণমাধ্যমকর্মী ছাঁটাইয়ের এই অমানবিক কাজ দীর্ঘমেয়াদী গণমাধ্যম পেশাকেই হুমকির মুখে ফেলবে। কোন মেধাবী এই পেশায় আর আসতে চাইবে। তখন গণমাধ্যমও রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ হিসেবে কাজ না করে মালিকপক্ষের বিশেষ স্বার্থ হাসিলে কাজ করবে যা গণতন্ত্রের বিকাশকে বাধাগ্রস্থ করবে।

এসি/বিবিএন /স্টাফ রিপোর্টার।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published.