(ভিডিও সহ) হকার উচ্ছেদে বারে বারে প্রশাসক সুজনের কড়া অভিযানঃ দাদাগিরি করেও থামানো যাচ্ছে না।

  • 23
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    23
    Shares

ভিডিওঃ চসিক প্রশাসক সুজন এর হকার উচ্ছেদ অভিযানের ইউটিউভ ভিডিও

হকার উচ্ছেদে বারে বারে চসিক প্রশাসক সুজনের কড়া অভিযানঃ দাদাগিরি করেও থামানো যাচ্ছে না।

রোববার (৬ই সেপ্টেম্বর,২০২০) নগরের মাঝিরঘাট স্ট্যান্ড রোড, নিউমার্কেট মোড়, স্টেশন রোড, রেলওয়ে কভারস্টোর ফলমুন্ডি ফলমুন্ডি বাজার এলাকা পরিদর্শন করেন চসিক প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন।এসময় তিনি মানুষের চলাচলের পথে কাঁটা না হওয়ার জন্য হকারদের প্রতি আহ্বান জানান।

হকারদের উদ্দেশ্যে সুজন বলেন, মানুষের চলাচলের পথ সুগম করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে প্রশাসকের দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি কোনভাবেই পূনর্বাসন ছাড়া হকার উচ্ছেদের পক্ষে নই। তবে মানুষের চলাচলের পথে কোন প্রতিবন্ধকতা সহ্য করা হবে না।

তিনি আরো বলেন, অনেক সড়কে নিষেধ সত্বেও হকাররা চৌকি বসিয়ে বাঁশ ও কাঠ দিয়ে অস্থায়ী স্থাপনা ও ছাউনি বানিয়ে রেখেছেন । রাস্তার যানবাহন ও পথচারী চলাচলের অংশেও তারা ব্যবসা-পাতির পসরা সাজিয়েছেন। রাস্তার উপর নির্মাণ করা এসব অবৈধ স্থাপনা ও চকিগুলো সরিয়ে না ফেললে জব্দ করে নিলামে তোলা হবে। হকার নেতাদের সাথে আলাপ-আলোচনা করে আমি যে ছাড়গুলো দিয়েছি তা কেউ যদি দুর্বলতা মনে করেন তাহলে তাদের জন্য কঠোর দন্ড অপেক্ষা করছে।

পরিদর্শনকালে সুজনকে উত্তেজিত অবস্থার হকারদের গালিগালাজ ও কলার চেপে ধরতেও দেখা যায়। এসময় প্রশাসকের সাথে উপস্থিত ছিলেন চসিক প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মোহাম্মদ মুফিদুল আলম, প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী বিপ্লব দাশ, সহকারী প্রকৌশলী আশিক উল ইসলাম, মজিবুল হায়দার, উপ-সহকারী প্রকৌশলী নূর সোলায়মান, চন্দন দাশ প্রমুখ।

প্রসঙ্গত গত ২৪শে আগস্ট সকালে চট্টগ্রামে ব্যবসারত হকার ও হকার নেতাদের সাথে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজনের সাথে আন্দরকিল্লাস্থ চসিক পুরাতন নগরভবনের কে বি আবদুচ ছত্তার মিলনায়তনে হলে অনুষ্ঠিত এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, নগরীর ফুটপাতে ব্যবসারত হকারদের কে কোন স্পটে বসবে তা নির্ধারণ করবেন হকার নেতৃবৃন্দ এবং হকাদের বসার স্থান নির্ধারণ করে করে দেবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন।


বিকেল ৩টা হতে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত হকাররা নগরীর ফুটপাতে বসবেন এবং ফুটপাতের একটি অংশ জনসাধারণের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত রাখতে হবে। তালিকাভুক্ত হকারদের নির্দ্দিষ্ট ব্যাচ ও ইউনিফরম থাকবে। এছাড়া ফুটপাত বা রাস্তায় হকারদের কোন অবকাঠামো থাকতে পারবে না। উল্লেখিত সিদ্ধান্ত সমূহ ৪ সেপ্টেম্বর তারিখ হতে কার্যকর হওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় উক্ত বৈঠকে।

স্টাফ রিপোর্টার / বিবিএন।


  • 23
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    23
    Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published.