বঙ্গোপসাগরে এ মাসেই ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা

  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

গতকাল বৃহস্পতিবার সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞ কমিটির সভায় এই দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে। আবহাওয়া অধিদফতরের ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্র ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটির এ সভায় সভাপতিত্ব করেন আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক ও কমিটির চেয়ারম্যান সামছুদ্দিন আহমেদ।

চলতি অক্টোবর (আশ্বিন-কার্তিক) মাসে বঙ্গোপসাগরে ১ থেকে ২টি লঘুচাপ-নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এরমধ্যে একটি ঘনীভ‚ত হয়ে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। গত সেপ্টেম্বর (ভাদ্র-আশ্বিন) মাসে সারাদেশে গড়ে স্বাভাবিকের চেয়ে ৩৩.১ শতাংশ বেশি বৃষ্টি ঝরেছে। অক্টোবর মাসে বাংলাদেশে বৃষ্টিপাত হতে পারে স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বেশি।

এদিকে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও এর সংলগ্ন পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগরের অদূরে গতকাল একটি লঘুচাপ সৃষ্টি হয়েছে। এটি ঘনীভ‚ত হতে পারে। সাধারণত অক্টোবর-নভেম্বরে বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ-নিম্নচাপ থেকে ঘূর্ণিঝড়ের ঘনঘটা তৈরি হয়। যা আশি^ন-কার্তিকের তুফান হিসেবে অতীতকাল থেকেই পরিচিত।
পূর্বাভাসে আরও জানা গেছে, চলতি অক্টোবর মাসের তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ুপ্রবাহ (বর্ষা) বাংলাদেশ থেকে বিদায় নেবে। গত সেপ্টেম্বর মাসে দেশের বিভিন্ন বিভাগওয়ারি বৃষ্টিপাতে ছিল অসঙ্গতি। ঢাকা বিভাগে স্বাভাবিকের চেয়ে ১৯.৪ এবং খুলনা বিভাগে ২৯.৭ শতাংশ কম বৃষ্টিপাত হয়েছে। অন্যদিকে উত্তরের জনপদ রংপুর বিভাগে স্বাভাবিকের চেয়ে ১৩৩ শতাংশ বেশি বর্ষণ হয়েছে। সেপ্টেম্বরে রংপুর বিভাগে স্বাভাবিক বর্ষণ ধরা হয় ৪১৭ মিলিমিটার। বাস্তবে বৃষ্টিপাত হয়েছে ৯৭২ মিলিমিটার।

তাছাড়া চট্টগ্রাম বিভাগে স্বাভাবিকের চেয়ে ২৪.৬ শতাংশ, ময়মনসিংহ বিভাগে ৭৩.৬ শতাংশ, সিলেট বিভাগে ৩৯.৬ শতাংশ, রাজশাহী বিভাগে ৪.৩ শতাংশ, বরিশাল বিভাগে ২১.৯ শতাংশ এবং সমগ্র দেশে গড়ে ৩৩.১ শতাংশ বেশিই বৃষ্টিপাত হয়েছে গেল সেপ্টেম্বর মাসে। এরআগে আগস্টে (শ্রাবণ-ভাদ্র) সারাদেশে গড় বৃষ্টিপাত ছিল স্বাভাবিক হারে।

বিশেষজ্ঞ কমিটি সেপ্টেম্বর মাসের আবহাওয়া পর্যালোচনা করে জানায়, সক্রিয় মৌসুমী বায়ু এবং লঘুচাপের প্রভাবে গত ২১ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর রংপুর ও চট্টগ্রাম বিভাগে অতিভারী বর্ষণসহ সারাদেশে মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হয়েছে। এ সময় ২৬ সেপ্টেম্বর সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয় রংপুরে ২৬৭ মিলিমিটার। গেল মাসে সারােেদশ গড় সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে যথাক্রমে ১.২ এবং ২.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি ছিল। দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ১৯ ও ২০ সেপ্টেম্বর যথাক্রমে সিলেট ও দিনাজপুরে ৩৭.৩ ডিগ্রি সে.। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৭ সেপ্টেম্বর তেঁতুলিয়ায় ২২.৩ ডিগ্রি সে.।

সর্বশেষ আবহাওয়া
বৃষ্টিবাহী মৌসুমী বায়ু সক্রিয় হওয়ায় গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশের অনেক জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি বর্ষণ, কোথাও কোথাও ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে। এ সময় সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয় ময়মনসিংহে ৬৫ মিলিমিটার। এ সময় ঢাকায় ১৬ মি.মি.সহ অনেক জেলায় বর্ষণ হয়েছে।
আজ শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে জানা গেছে, দেশের অনেক জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে। কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাতের প্রবণতা অব্যাহত থাকতে পারে। আবহাওয়া বিভাগ জানায়, মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

সূত্রঃ আবহাওয়া অধিদপ্তর

বে অব বেঙ্গল নিউজ/ BAY OF BENGAL NEWS


  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares