সচেতনতার বার্তা নিয়ে ঢাকা থেকে সিলেট পায়ে হেঁটে পাড়ি দিলেন দুই শিক্ষার্থী

  • 7
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    7
    Shares

ধর্ষণ ও নারী নিপীড়নের বিরুদ্ধে এ এক অন্যরকম প্রতিবাদ, ঢাকা থেকে ২৮০ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে পৌঁছেছেন সিলেটে। পথে পথে বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ কর্মসূচিতে অংশ নেন দুই শিক্ষার্থী। দাবি জানান অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি।

সচেতনতার বার্তা নিয়ে ঢাকা থেকে সিলেট পায়ে হেঁটে পাড়ি দিলেন দুই শিক্ষার্থী।
চিত্রঃ দুই শিক্ষার্থী আরিফ সোহেল ও কাজী মেহেদী হাসান।

ধর্ষণবিরোধী বার্তা নিয়ে সিলেটে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আরিফ সোহেল ও কাজী মেহেদী হাসান। যেখানেই নিপীড়নের শিকার হয়েছিলেন গৃহবধূ এমসি কলেজে গিয়ে শেষ হয় তাদের পদযাত্রা। গেল ৭ দিনে প্রায় ২৮০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়েছেন পায়ে হেঁটে। যেখানে থেমেছেন জানিয়েছেন নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের প্রতিবাদ। 

এ ব্যাপারে তাদের একজন বলেন, এই কর্মসূচীর মাধ্যমে বাংলাদেশের মানুষকে একটা সচেতন ও তার বার্তা দেওয়া। যখন কোন ধর্ষিতা ধর্ষিত হয় সেটা তার পোশাকের কারণে হয় না বা অন্য কোনো কারণেও হয় না। ধর্ষণের কারণ ধর্ষক নিজে।

অপরজন বলেন, যাত্রাপথে আমরা নর্সিংদি পরবর্তীতে ভৈরব বাজার এর পরে মাধবপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া এ জায়গা গুলো আমরা পার হয়েছি এবং এখানকার গণমানুষের সাথে গণসংযোগ চালিয়েছি।

এ দুই তরুণ জানান ধর্ষণের বিচার দাবি ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে তাদের এই পদযাত্রা। পাশাপাশি লক্ষ্য ছিল মানুষকে ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলনে শামিল করা।

এ বিষয়ে তারা বলেন, আমাদের চিন্তা হচ্ছে পদযাত্রার মাধ্যমে প্রত্যেকটি এলাকায় এলাকায় গিয়ে ধর্ষণের বিরুদ্ধে এমন সচেতনতা সৃষ্টি করা যাতে করে প্রত্যেকটি এলাকায় ধর্ষণবিরোধী জনতা ঐক্যবদ্ধ হয়।

এছাড়া তারা বলেন, যখন কেউ ধর্ষিত হবে তখন আমাদেরকে তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে যাতে তারা সুষ্ঠু বিচার পায় এবং খুব দ্রুত বিচার নিশ্চিত করা যায়। 

 উল্লেখ্য আরিফ সোহেল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র এবং কাজী মেহেদী হাসান এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালইয়ে ইংরেজি দ্বিতীয় বর্ষে অধ্যায়নরত আছেন।

ওয়াইএইচ / বে অব বেঙ্গল নিউজ।


  • 7
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    7
    Shares