পুলিশ-হেফাজত ইসলামের মুখোমুখি সংঘর্ষ | রণক্ষেত্র চট্টগ্রামের হাটহাজারী এলাকা

পুলিশ ও হেফাজত ইসলামের মুখোমুখি সংঘাতে রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে চট্টগ্রামের হাটহাজারী এলাকা।

পুলিশ-হেফাজত ইসলামের মুখোমুখি সংঘর্ষ | রণক্ষেত্র চট্টগ্রামের হাটহাজারী এলাকা
পুলিশ-হেফাজত ইসলামের মুখোমুখি সংঘর্ষ | রণক্ষেত্র চট্টগ্রামের হাটহাজারী এলাকা

আজ শুক্রবার (২৬ মার্চ) জুমার নামাজের পরে বায়তুল মোকাররমে জনতা ও ছাত্রলীগের সংঘর্ষের প্রতিবাদে হাটহাজারী মাদ্রাসার ছাত্ররা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। সে মিছিল থেকে হাটহাজারী ভূমি অফিস, থানা এবং ডাক বাংলোয় হামলা চালানো হয়।

হামলকারীরা থানার দিকে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকলে তাদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পুলিশ ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত চার জন নিহত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক আলাউদ্দিন তালুকদার। এছাড়াও পাঁচ থেকে ছয়জন ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, হাটহাজারী মাদ্রাসা থেকে বের হয়ে হেফাজত ইসলামের নেতাকর্মীরা বিনা উস্কানিতে থানায় ব্যাপক ভাংচুর চালিয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরে তারা তাণ্ডব চালিয়েছে।

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন জানান, ‘থানা, ভূমি অফিস, সরকারী ডাক বাংলো সহ বিভিন্ন জায়গায় হামলা চালিয়েছে হেফাজত। তারা ভূমি অফিসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র, আসবাবপত্র এবং একটি গাড়িতেও আগুন জ্বালিয়ে দেন।’

এ ব্যাপারে হেফাজত ইসলামের প্রচার সম্পাদক নোমান ফয়েজী বলেন, ‘আমাদের কর্মীদের উপর নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে। অনেকে গুলিবিদ্ধ হয়েছে।’

এদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় পুরো এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করেছে। বন্ধ রয়েছে মহাসড়কের সমস্ত দোকানপাট ও গণপরিবহন।