গা ছাড়া ভাব: বাড়তে পারে করোনা সংক্রামণের ঝুঁকি

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দেশে করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের ১৭২তম দিনে নতুন করে ১৪ হাজার ৮৩৫টি নমুনা পরীক্ষার মধ্যে ২ হাজার ৫১৯ জনের দেহে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে। আর আক্রান্তদের মধ্যে ৫৪ জন মারা গেছেন। এসময়ে সুস্থ হয়েছেন ৩ হাজার ৪২৭ জন।দেশে একদিনে মৃত্যু অর্ধশতাধিক।

বিশেষজ্ঞদের মতে, যে যে কারণে বাড়তে পারে করোনা সংক্রামণের ঝুঁকি—

১।অনেকেই ধরে নিচ্ছেন ভাইরাস নেই, এটা গুজব করোনাভাইরাসকে আমাদের মধ্যে অনেকেই খুব হালকা ভাবে নিচ্ছেন। যেটা আপনার আর আশপাশের লোকদের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াচ্ছে। আর এমনটা ভাবার কারণে আক্রান্ত হওয়ার পাশাপাশি অনেককেই জীবন দিতে হচ্ছে। তাই, ভাইরাস নেই এটা মনে করবেন না। বরং সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি মেলে চলার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। 

করোনায় করণীয় ছবিঃ সংগৃহীত

২। করোনাভাইরাস সুরক্ষা সামগ্রী ছাড়াই বাইরে যাচ্ছেন করোনাভাইরাসের সুরক্ষা সামগ্রী বলতে আমরা বুঝি মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং গ্লাভস, টিস্যু। আমরা অনেকেই মনে করি করোনা আমার শরীরে নেই এবং প্রবেশ করতে পারবে না। সেই বিশ্বাসে করোনাভাইরাস সুরক্ষা সামগ্রী ছাড়াই আমরা যখন-তখন বাইরে যাচ্ছি। আর সেজন্য বাড়ছে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি। 

তাই চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী, বাসার বাইরে বের হওয়ার আগে অবশ্যই হ্যান্ড স্যানিটাইজার এর টিস্যু পেপার সঙ্গে রাখবেন। আর মাস্ক তো অবশ্যই পরবেন।

৩।বিরত নেই বাইরের জিনিস স্পর্শ থেকে করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করার পরও এখনও অনেকেই বিরত নেই বাইরের জিনিস স্পর্শ করা থেকে। যেটা খুব সহজেই সংক্রামণের দিকে ঠেলে দিচ্ছে আপনাকে। আর এই কাজটি করার ফলে আক্রান্ত হচ্ছেন আপনি। 

৪।করোনাভাইরাস সংক্রান্ত খবর এড়িয়ে যাচ্ছেন, অসতর্ক থাকছেন অনেকেই করোনাভাইরাস নিয়ে কোনও খবর সামনে আসলে সেটি এড়িয়ে যাচ্ছেন। ভাইরাসটির মত সংবাদটিও ফেইক মনে করছেন। ফলে আপনি নিজেই অসতর্ক থাকছেন। আর এতে নিজেই বিপদে পড়ছেন।

৫। অনেকেই কারণে-অকারণে শপিং করতে যাচ্ছেন করোনার কারণে প্রায় তিন মাসের বেশি সময় লকডাউনে বাসায় কাটানোর পর চতুর্দিকে যখন দোকানপাট, শপিংমল খুলেছে, ঠিক তখন কারণে-অকারণে অনেকেই শপিং মলে যাচ্ছেন। যেটা করোনার ঝুঁকিতে ফেলছে আপনাকে। 

গণপরিবহনে স্বাস্থ্য ঝুঁকি ছবিঃসংগৃহীত

৬।সীমিত আকারে চালু হয়েছে গণপরিবহন।সামাজিক দুরত্ব বজায় রেয়ে গণপরিবহন চালু করা কথা বলা হলেও  জনগণের অসচেতনতার কারণে বাড়ছে সংক্রামণের ঝুঁকি।

এ ক্ষেত্রে, যে গণপরিবহন এ সামাজিক দুরত্ব মানা হচ্ছে না,সেগুলোতে যাতায়াত না করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

আপনার সচেতনতাই পারে আপনি,আপনার পরিবার,সমাজ,শহর তথা দেশের করোনা ভাইরাস বাড়ার ঝুঁকি কমাতে।

এসি/ বিবিএন/ স্টাফ রিপোর্টার।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published.